Breaking News

লবণ, গোলমরিচ ও লেবু দূ’র করবে যে ১০টি জটিল স্বাস্থ্য সমস্যা!

সাধারণত সালাদ তৈরিতে আমরা কী কী ব্যবহার করি? লবণ, গোলমরিচ এবং লেবু এই তো? এই লবণ, গোলমরিচ এবং লেবুর আলাদা আলাদা স্বাস্থ্যগুণ রয়েছে। আপনি কি জানেন এই তিনটির মিশ্রণ সারা বিশ্বে অনেকগুলো রোগের প্রতিষোধক হিসেবে ব্যবহৃত হয়? শুধুমাত্র এই তিনটি উপাদান কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া ছাড়া সারিয়ে তুলবে আপনার অসুখ।

১। গলা ব্যথাঃ ১ টেবিল চামচ লেবুর রস, ১/২ চা চামচ গোল মরিচ গুঁড়ো এবং ১ চা চামচ লবণ এক গ্লাস গরম পানিতে মিশিয়ে নিন। এবার এটি দিয়ে কুলকুচি করুন দিনে দুইবার। এটি গলার কফ তরল করে গলা ব্যথা কমিয়ে দিয়ে থাকবে। ২। বন্ধ নাকঃ সমপরিমাণে গোল মরিচ গুঁড়ো, দারুচিনি, এলাচ এবং জিরা গুঁড়ো এক সাথে গুঁড়ো করে নিন। এই মিশ্রণটি ঘ্রাণ নিন। আর দেখুন কত সহজেই আপনার বন্ধ নাক পরিষ্কার হয়ে গেছে।

৩। পাথর দূর করতেঃ পিত্তকোষ বা গলব্লাডারে পাথর খুব সাধারণ একটি সমস্যা। এটি পরিপাক নালী ব্লক, ব্যথা হজমের সমস্যা আরও অনেক সমস্যা সৃষ্টি করে থাকে। এই পাথর দূর করতে সাহায্য করবে এই মিশ্রণটি। তিন অংশ অলিভ অয়েল, এক অংশ লেবুর রস এবং এক অংশ গোল মরিচের গুঁড়ো ভাল করে মিশিয়ে নিন। এটি পান করুন। এটি পাথর দূর করতে সাহায্য করবে।

৪। মুখের ঘাঃ এক টেবিল চামচ বিট লবণ এক কাপ গরম জলেতে মিশিয়ে নিন। প্রতিবেলা খাবার খাওয়ার পর এটি দিয়ে কুলকুচি করুন। এটি মুখের খারাপ ব্যাকটেরিয়া দূর করে মুখের ঘা ভাল করে দিয়ে থাকে।

৫। ওজন হ্রাসঃ ১/৪ চা চামচ গোল মরিচ গুঁড়ো, ২ টেবিল চামচ লেবুর রস এবং ১ টেবিল চামচ বিশুদ্ধ মধু এক গ্লাস জলে মিশিয়ে নিন। এটি আপনার মেটাবলিজমকে উন্নত করে থাকে। লেবুতে পলিফেনল নামক উপাদান রয়েছে যা শরীরের ইনসুলিনের পরিমাণ বৃদ্ধি করে এবং শরীরের চর্বি পুড়িয়ে দিয়ে থাকে।৬। বমি বমি ভাবঃ অস্থির পাকস্থলিকে শান্ত করতে গোল মরিচ বেশ কার্যকর।

এছাড়া লেবুর গন্ধ বমি বমি ভাব দূর করে থাকে। এক টেবিল চামচ লেবুর রস এবং এক চা চামচ গোল মরিচের গুঁড়ো এক গ্লাস গরম পানিতে মিশিয়ে নিন। এটি আস্তে আস্তে পান করুন। এটি বমি বমি ভাব দূর করে দিবে এক নিমিষে।৭। দাঁত ব্যথাঃ ১/২ চা চামচ গোল মরিচ গুঁড়ো এবং ১/২ চা চামচ লবঙ্গের তেল মিশিয়ে ব্যথার দাঁতে রাখুন। এটি দ্রুত দাঁতের ব্যথা কমিয়ে দিবে।

৮। ঠান্ডা এবং ফ্লুঃ অর্ধেকটা লেবুর রস এবং এক কাপ গরম জলে মিশিয়ে নিন। এটি ঠান্ডা দূর করে দিবে। এছাড়া লেবুর খোস ১০ মিনিট পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। তারপর মধু মিশিয়ে এটি পান করুন। ৯। নাকের রক্ত বন্ধঃ এক টুকরো তুলোর বল লেবুর রসে ভিজিয়ে নিন। এরপর এটি নাকে ধরে রাখুন। কিছুক্ষণে মধ্যে দেখবেন নাকের রক্ত পড়া বন্ধ হয়ে গেছে।

১০। অ্যাজমা অ্যাটাকঃ ১০ গ্রাম গোল মরিচ গুঁড়ো, ২টি লবঙ্গ এবং ১৫ টি তুলসি পাতা এক কাপ জলে ফুটিয়ে নিন। ১৫ মিনিট ফুটানো হয়ে গেলে এতে ২ টেবিল চমাচ মধু মিশিয়ে ঠাণ্ডা হতে দিন। এটি ফ্রিজে ২ সপ্তাহ পর্যন্ত রাখতে পারবেন। ভাল ফল পেতে দুধের সাথে মিশিয়ে পান করুন। আপনি যদি হাঁপানির রোগী হয়ে থাকেন তবে এই মিশ্রণটি ঘরে তৈরি করে রাখুন।

About admin

Check Also

ফ্যাক্টরিতে কিভাবে পরিশোধিত করে খাটি সোনা তৈরি করা হয়, আর কেনেই বা কেউ সোনার ফ্যাক্টরিতে কাজ করতে চায়না।

নিজস্ব প্রতিবেদন: পৃথিবীতে সবচাইতে দামি পদার্থ গুলির মধ্যে একটি স্বর্ণ। স্বর্ণ এমন একটি পদার্থ যারা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *