Breaking News

তৃতীয় শ্রেণী পাস করে ডাইরেক্ট দেবে ৮ শ্রেণীর পরীক্ষা, রইল দেশের গুগল গার্লের পরিচয়

প্রত্যেকেরই জীবনে শিক্ষা খুবই গুরুত্বপূর্ণ অংশ। শিক্ষা এমন একটি অস্ত্র যার দ্বারা সবচেয়ে বড় অসুবিধাও অতিক্রম করা সম্ভব। গোটা বিশ্বের বর্তমান সময়ের অগ্রগতি অপরিসীম। হিমাচল প্রদেশের কাংড়া জেলার ‘পালমপুর’ শহরের মাত্র ৮ বছরের শিশু কন্যা “কাশভি” (Kashvi) তার প্রতিভা ও মেধার কারণে ‘গুগল গার্ল’ (Google Girl) নামে পরিচিতি পেয়েছে।

খবর অনুযায়ী, মাত্র ৮ বছর বয়সে ‘কাশভি’ সরাসরি তৃতীয় থেকে অষ্টম শ্রেণির পরীক্ষা দেবে! হ্যাঁ, হিমাচল প্রদেশের পালমপুরের ওয়ান্ডার গার্ল কাশভিকে বিশেষ পরিস্থিতিতে তৃতীয় শ্রেণি থেকে সরাসরি অষ্টম শ্রেণিতে বসার অনুমতি দিয়েছে। বাবা সন্তোষ কুমারের করা আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি মোহাম্মদ রফিক ও বিচারপতি জ্যোৎস্না রেওয়াল দুয়ার ডিভিশন বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

তার জন্ম ১২ ই মার্চ ২০১৪ সালে। বর্তমানে কাশভি ‘রেনবো পাবলিক’ সিনিয়র সেকেন্ডারি স্কুলে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ছে। কাশভির বয়স যখন ৩ বছর, তখন থেকেই সে ভারতের রাজ্য, কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল, প্রতিবেশী দেশগুলির রাজধানী, সৌরজগত, জাতীয় পতাকা, গুরুত্বপূর্ণ দিনগুলি, ভারতের জাতীয় উদ্যান, হিমাচল প্রদেশের জেলাগুলি ও অনন্যা সাধারণ বিষয়ে বিশেষ জ্ঞান ছিল তার।

কাশভির সাধারণ জ্ঞান এবং অন্যান্য বিষয়ের অনেক ভিডিও ইউটিউবে আপলোড করা আছে। কাশভির বাবা ১৬ অক্টোবর ২০২১ তারিখে জোনাল হাসপাতাল ধর্মশালায় তার আই কিউ (I-Q) পরীক্ষা করিয়েছিলেন, যেখানে তার IQ ছিল ১৫৪ নম্বর। ডাক্তার তাকে পরীক্ষা করে জানালেন যে তিনি একটি ব্যতিক্রমী বুদ্ধিমত্তার দিক থেকে উচ্চতর এবং প্রতিভাবান শিশু।

কাশভির আইকিউ পরীক্ষার ফলাফলের সাথে সাথে, তার বাবা রাজ্যের শিক্ষা বিভাগের বিভিন্ন কর্মকর্তাদের কাছে চিঠি পাঠিয়েছিলেন, হিমাচল প্রদেশ তাকে অষ্টম শ্রেণিতে ভর্তি করার জন্য অনুরোধ করেছিলেন এবং তাকে ৮ ম শ্রেণির পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার অনুমতি দিয়েছিলেন। কাশভি বুদ্ধিমত্তার দিক থেকে অনেক উচ্চতর ও অসাধারণ একটি শিশু।

About admin

Check Also

গলায় কালচে দাগ পড়লে এটা কীসের লক্ষণ?

গলায় কালচে দাগ অনেকই স্বাভাবিকভাবে নেন। ভাবেন শরীরের ময়লা। তবে গলায় এসব কালচে দাগ দেখলে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *