আর কোনো প্রাথমিক বিদ্যালয় সরকারিকরণের সুযোগ নেই

    বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সরকারিকরণের কোন প্রস্তাব বিবেচনার সুযোগ নেই বলে জানিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। যদিও এক শ্রেণির প্রতারক বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সরকারি করা হবে বলে বিভ্রান্তিমূলক প্রচারণা চালিয়ে নিরীহ শিক্ষকদের কাছ থেকে টাকা আদায় করছে। এ ধরনের বিভ্রান্তিকর প্রচারণার বিষয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করে সকলকে সতর্ক করা হয়েছে।

    রোববার এসব তথ্য জানিয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। একইসাথে আর কোন প্রাইমারি স্কুল সরকারিকরণের কোন সুপারিশ মন্ত্রণালয়ের না পাঠাতে সকলকে অনুরোধ করা হয়েছে।

    সিনিয়র সচিব আকরাম-আল-হোসেন স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রীর ঘােষণা অনুযায়ী ২৬, হাজার ৯৩টি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় তিন ধাপে জাতীয়করণ করা হয় এবং সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের ১ লাখ ৪ হাজার জন শিক্ষককে আত্তীকরণ করা হয়। সার্বজনীন ও মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কোন এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রয়ােজন হলে সরকার নিজ উদ্যোগে প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপনসহ শিক্ষক নিয়োগ করবে। বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণের আর কোন প্রস্তাব এ মন্ত্রণালয়ে বিবেচনা করার সুযােগ নেই।

    এতে আরও বলা হয়, কোন কোন স্বার্থান্বেষী মহল বিদ্যালয় জাতীয়করণ করা হবে মর্মে প্রচারণা চালিয়ে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করছে এবং কোন কোন ক্ষেত্রে অর্থ সংগ্রহ করছে, যা অনভিপ্রেত। বিভিন্ন ভূইফোঁড় প্রিন্ট, অনলাইন, ফেসবুকটিভি ও ফেসবুক পেইজে প্রচারণা চালিয়ে দীর্ঘদিন ধরে অর্থ আদায় করছে কতিপয় ব্যক্তি।

    জানা যায়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক একজন ভিসি, ঢাকার বাইরে কারিগরি কলেজের একজন অধ্যক্ষ ও কতিপয় নামধারী সাংবাদিককে ডেকে ভুয়া অনলাইনে টকশোর মাধ্যমে সরকারিকরণের দাবি করে আসছে এই চক্রটি।

    যে কোনো ধরণের বিভ্রান্তিকর প্রচারণায় প্ররােচিত না হতে এবং বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণের কোন আবেদন, সুপারিশ, প্রতিবেদন এ মন্ত্রণালয়ে না পাঠাতে বিজ্ঞপ্তিতে সবাইকে অনুরোধ করেছে গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

    Facebook Comments
    SHARE